স্বাস্থ্যবিধি মানতে গণসচেতনতা সৃষ্টিতে ইয়্যাসের প্রচারণা অব্যাহত


সংবাদ বিজ্ঞপ্তি: দেশজুড়ে করোনা ভাইরাসের সংক্রামণ বৃদ্ধি পাওয়ায় জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে গণসচেতনতা সৃষ্টিতে দ্বিতীয় দিনের মত প্রচারণা অব্যহত রেখেছে রাজশাহীর স্বেচ্ছাসেবী ও গবেষণাধর্মী উন্নয়নমূলক সংগঠন ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাস। কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সকলকে সঠিকভাবে মাস্ক পরিধান করাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব বাজায় রেখে চলাচল ও বিনাপ্রয়োজনে ঘরের বাইরে না গিয়ে বরং ঘরে অবস্থান করতে সচেতন করছেন সংগঠনের সদস্যরা।

মঙ্গলবার (০৬ এপ্রিল) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত রাজশাহীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্ট, গণকপাড়া, সোনাদীঘি মনিচত্বর, মাস্টারপাড়া কাঁচাবাজার, আরডিএ মার্কেট, অলকার মোড়, নিউ মার্কেট, হাতেমখাঁ বড়মসজিদ এলাকাসহ নগরীর বিভিন্ন এলাকায় তারা এই করোনা সচেতনতা প্রচারাভিযান চালায়।

ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাসের সভাপতি মোঃ শামীউল আলীম শাওনের দিকনিদের্শনায় সাধারণ সম্পাদক মোঃ আতিকুর রহমান আতিকের পরিচালনায় একটি ভ্রাম্যমাণ টিম আজ সোমবার (০৫ এপ্রিল) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এই প্রচারাভিযান পরিচালনা করেন। তাদেরকে সার্বিক সহযোগিতা করেন ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাসের অর্থসম্পাদক রিনা আক্তার।

প্রচারাভিযানকালে সকলকে সচেতন করতে তারা হ্যান্ড মাইক দিয়ে জনসাধারণের উদ্দেশ্যে বলেন, “আসুন আমরা সকলেই সতর্ক, সচেতন ও মানবিক হই। ভাইরাস নয়, সম্প্রীতি ছড়ায়। সঠিকভাবে মাস্ক পরিধান করি, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল নিশ্চিত করি। সকল সরকারি নির্দেশনা ও নিষেধাজ্ঞা মেনে চলি এবং বিনাপ্রয়োজনে বাড়ির বাইরে গিয়ে ঘোরাফেরা না করে বরং বাড়িতে অবস্থান করি। নিজে নিরাপদ ও সুস্থ থাকি, অপরকেও নিরাপদ ও সুস্থ থাকতে সহায়তা করি।”

দেশজুড়ে করোনা ভাইরাসের সংক্রামণ বৃদ্ধি পাওয়ায় রোববার (০৪ এপ্রিল) সরকারের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করে করোনা ভাইরাসের সংক্রামণ রোধকল্পে দ্বিতীয় দফায় সারা দেশে ৫ এপ্রিল হতে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন ঘোষনা করেছে। তাই সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে সকলকে সচেতন করে তোলার লক্ষ্যে ৫ এপ্রিল থেকে ইয়্যাসের এই করোনা প্রচারাভিযান শুরু করেছে ও তা ধারাবাহিকভাবে অব্যহত রয়েছে ।

 


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *